Home শিক্ষানৃবিজ্ঞান বয়স্ক অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য

বয়স্ক অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য

by Rezaul Karim
বয়স্ক অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য

বয়স্ক অপরাধ ও কিশোর অপরাধ

বয়স্ক অপরাধ ও কিশোর অপরাধ উভয়ই সমাজবিরোধী কাজ হিসেবে গণ্য। উভয় অপরাধীর মৌলিক পার্থক্য মূলত বয়সগত। অন্যান্য পার্থক্যও পরিদৃষ্ট হয়। নিম্নে তা উল্লেখ করা হলো:

বয়স্ক অপরাধ কিশোর অপরাধ
১. প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি আইন ও সমাজবিরোধী কাজ করলে তাকে বয়স্ক অপরাধী বলা হয়। ১. অপ্রাপ্ত বয়স্ক অনুরূপ আচরণকারীকে বলা হয় কিশোর অপরাধী। বাংলাদেশে ৭ থেকে ১৬ বছর বয়সী পর্যন্ত অপরাধীগণ কিশোর অপরাধী বলে গণ্য।
২. বয়স্ক অপরাধীরা ছোটবড় সব ধরনের অপরাধ করে। ২. কিশোর অপরাধীরা সাধারণত ছোটখাটো অপরাধ করে থাকে।
৩. বয়স্ক অপরাধীরা সাধারণত স্থায়ী অপরাধমনস্ক হয়ে থাকে। তাই ধারাবাহিকভাবে অপরাধ সংঘটিত করে থাকে। ৩. কিশোরদের অপরাধ সাধারণত তাদের সাময়িক অস্বাভাবিক আচরণ। তারা স্থায়ী অপরাধমনস্ক নয়।
৪. বয়স্ক অপরাধীগণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও সুচিন্তিতভাবে অপরাধ সংঘটিত করে। ৪. কিশোররা সাধারণত কৌতূহলের বশে কিংবা আবেগতাড়িত হয়ে অপরাধে লিপ্ত হয়।
৫. বয়স্ক অপরাধীদের বেলায় সে কেন অপরাধ করল সে বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিয়ে তার কৃতকর্মের জন্য দায়ী বলে চিহ্নিত করা হয়। ৫. কিশোর অপরাধের ক্ষেত্রে কিশোরের ব্যক্তিত্ব এবং যে পারিপার্শ্বিক উপাদান দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সে অপরাধ করছে তার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়।
৬. বয়স্করা মূলত বৈষয়িক স্বার্থে অপরাধ করে। ৬. কিশোরদের অপরাধের পিছনে বৈষয়িক স্বার্থ প্রবল থাকে না।
৭. বয়স্ক অপরাধীরা কোন না কোন সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের সাথে যুক্ত থাকে। ৭. কিশোর অপরাধীদের তেমন কোন সংঘবদ্ধ দল থাকে না। এরা কুসংসর্গে পড়ে অপরাধ করে।
৮. বয়স্ক অপরাধের প্রকৃতি ও গুরুত্ব অনুযায়ী আইনে শাস্তির বিধান আছে। এ শাস্তি জেল-জরিমানা থেকে মৃত্যুদণ্ড পর্যন্ত হতে পারে। ৮. কিশোর অপরাধের জন্য শাস্তির পরিবর্তে সংশোধন ও পুনর্বাসনের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়।
কিশোর অপরাধ কি | কিশোর অপরাধ কাকে বলে
৯. বয়স্ক অপরাধীদের বিচার ব্যবস্থায় আইন এবং আনুষ্ঠানিকতার উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়। ৯. কিশোর অপরাধীদের ক্ষেত্রে আইনের উপর কম গুরুত্ব দেওয়া হয় এবং অনানুষ্ঠানিক ঘরোয়া পরিবেশে বিচার কাজ সম্পন্ন করা হয়।
১০. বয়স্ক অপরাধীদের বিচার দেশের সাধারণ বিচারালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। ১০. কিশোর অপরাধীদের বিচার হয় ‘কিশোর আদালত’ নামক বিশেষ বিচারালয়ে।
১১. বিচার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বয়স্ক অপরাধীকে হাজতে রাখা হয়। ১১. কিশোর অপরাধীকে কিশোর সংশোধনমূলক প্রতিষ্ঠানে রাখা হয়।

যদিও বয়স্ক অপরাধীদের তুলনায় কিশোর অপরাধীদেরকে তাদের কৃতকর্মের জন্য তুলনামূলকভাবে কম দায়ী করা হয় তথাপি সংশোধনের ব্যবস্থা না নিলে কিশোররাই একদিন বয়স্ক অপরাধী হিসেবে সমাজে প্রতিভাত হবে। কেননা কোন ব্যক্তিই অপরাধী হয়ে জন্মগ্রহণ করে না, বরং সামাজিক পরিবেশই তাকে অপরাধী হতে শেখায়।

কিশোর অপরাধের কারণ গুলো কি কি?

Related Posts