Home শিক্ষানৃবিজ্ঞান বিশ্বায়ন কি | বিশ্বায়ন কাকে বলে | বিশ্বায়ন বলতে কি বুঝ

বিশ্বায়ন কি | বিশ্বায়ন কাকে বলে | বিশ্বায়ন বলতে কি বুঝ

by Rezaul Karim
বিশ্বায়ন কি, বিশ্বায়ন কাকে বলে, বিশ্বায়ন বলতে কি বুঝ,

বিশ্বায়ন কি বা কাকে বলে

বিশ্বায়ন সমাজবিজ্ঞানে ব্যবহৃত একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্যয়, যা সর্বজনীন এবং যেখানে গোটা বিশ্বকে একটা Global Village বা বৈশ্বিক গ্রামে পরিণত করেছে। বিশ্বায়ন বা ভুবনায়ন পৃথিবীকে একটি একক সত্তা হিসেবে বিবেচনা করে। এটি মানুষকে এনেছে কাছাকাছি আর করেছে পরস্পর পরস্পরের উপর নির্ভরশীল। বিশ্বায়ন হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সারা বিশ্ব একীভূত হয়।

বিশ্বায়ন মূলত একটি সর্বব্যাপী ও সার্বক্ষণিক চলমান প্রক্রিয়া। বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দেশ, জাতি ও অঞ্চলের মধ্যে বহুমুখী সম্পর্কের একটি নেটওয়ার্ক, যেখানে জাতীয়, আঞ্চলিক বা মহাদেশীয় দূরত্বকে অতিক্রম করে বিশ্বব্যাপী পারস্পরিক নির্ভরশীলতা ও আন্তঃসম্পর্ক সৃষ্টি করে। সুতরাং বিশ্বায়নের স্রোত বা প্রবাহ যত জোরদার হচ্ছে, রাষ্ট্রীয় সীমানার বিষয়টি ততই গৌণ হচ্ছে। ফলে পুঁজি, পণ্য, তথ্য, নীতি, আদর্শ, ধারণা ও সংস্কৃতি এমনকি মানুষের গমনাগমনও বাড়ছে ব্যাপকভাবে। বিশ্বায়ন শব্দটির ব্যবহার নিয়ে তাত্ত্বিকদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। কেউ কেউ Economic Integration বা অর্থনৈতিক একত্রীকরণ অর্থে বিশ্বায়নকে ব্যবহার করতে চান। কেউ কেউ বিশ্বের সমগ্র মানবগোষ্ঠীকে এক ও অভিন্ন বিশ্বের বাসিন্দা হিসেবে মনে করতে চান। আবার কেউ কেউ বিশ্বকে একই সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে আনার পক্ষপাতী।

সামাজিক পরিবর্তনের তত্ত্ব সমূহ আলোচনা কর

১৯৯১ এর নোবেল বিজয়ী লরিয়েট ন্যাদাইন গর্দিমার বলেছেন, “বাজারধর্মী বিশ্বায়ন এবং সাংস্কৃতিক বিশ্বায়ন একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে না। সংস্কৃতির ভুবনটি সরলরৈখিক নয়, জটিল ও বৃত্তাকার। সংস্কৃতি যদি ভুবনায়নের পথ ধরে থাকে তাহলে এর লক্ষ্য হতে হবে বিভিন্ন ভাষা ও সংস্কৃতির নন্দনতাত্ত্বিক সীমান্তে সৃজনশীলতা এবং ভিন্নতাকে শ্রদ্ধার সাথে মূল্যায়ন করা, কোন বিশ্বভাষা বা বিশ্ব সংস্কৃতির নির্দেশ মেনে নেওয়া নয়। তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন, “Globalization is a circular, not a linear concept, the very root of the world implies this shape of wholeness at sitting forth and receiving in one continuous movement.” [Cultural Globalization: Living on a frontier less land]

Tony J. Watson এর মতে, “Globalization is a trend in which the economic political and cultural activities of people in different countries increasingly influence each other and become interdependent.” অর্থাৎ, বিশ্বায়ন হলো এমন একটি ধারা যেখানে বিভিন্ন দেশের লোকেরা অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে পরস্পর পরস্পরকে প্রভাবিত করে সমৃদ্ধ হচ্ছে এবং আন্তঃনির্ভরশীলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ড. জ্যাক হালাক (১৯৯৮) এর মতে, “Globalization is a combination of much freer trade in goods and services combined with free capital market.” অর্থাৎ, বিশ্বায়ন হচ্ছে মূলধনসহ পণ্য ও সেবার অবাধ প্রবাহের একটি সমন্বিত ব্যবস্থা।

‘Mass Media and Globalization’ শীর্ষক রচনায় যুক্তরাষ্ট্রের অধ্যাপক হামিদ মওলানা উল্লেখ করেছেন, “বিশ্বায়ন একটি ধনাত্মক শক্তি, যা বিচিত্র এবং ভিন্নধর্মীয় সমাজকে একটি Global village বা বৈশ্বিক গ্রামে বেঁধে রাখবে। বিশ্বায়নকে দেখা হচ্ছে মানুষের বিবর্তন ও অগ্রগতির একটি অনিবার্য ফল হিসেবে। তিনি বিশ্বায়নকে দেখেছেন শক্তিশালী “Trans National Corporation’ এবং প্রভাবশালী বহুজাতিক সংস্থাগুলোর এগিয়ে যাবার একটি কর্মকৌশল হিসেবে।

সামাজিক পরিবর্তনের কারণ সমূহ আলোচনা কর

Anthony Giddens তাঁর ‘Sociology’ গ্রন্থে বলেন, “Globalization refers to the fact that we all increasingly live on ‘one world’, so that individuals groups and nations become more interdependent. ” অর্থাৎ, বিশ্বায়ন সেই বাস্তবতাকে নির্দেশ করে, যেখানে আমরা সকলে সম্মিলিতভাবে ‘এক পৃথিবীতে’ বসবাস করি যাতে ব্যক্তি, গোষ্ঠী এবং জাতি আরো বেশি আন্তঃনির্ভরশীল।

উপর্যুক্ত সংজ্ঞা ও আলোচনা থেকে বিশ্বায়ন সম্পর্কে আমরা একটি স্পষ্ট ধারণা লাভ করতে পারি। বিশ্বায়ন দ্বারা একটি প্রক্রিয়াকে বুঝানো হয়ে থাকে, যার দ্বারা সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক দিক থেকে সারা পৃথিবীর মানুষকে একই পতাকাতলে নিয়ে আসা হয়।

Related Posts

1 comment

Comments are closed.