Home শিক্ষানৃবিজ্ঞান ব্যক্তিত্ব কি বা কাকে বলে? ব্যক্তিত্বের সংজ্ঞা দাও

ব্যক্তিত্ব কি বা কাকে বলে? ব্যক্তিত্বের সংজ্ঞা দাও

by Rezaul Karim
ব্যক্তিত্ব কি, ব্যক্তিত্ব কাকে বলে, ব্যক্তিত্বের সংজ্ঞা দাও,

ব্যক্তিত্ব কি বা কাকে বলে?

ব্যক্তিত্ব সমাজ মনোবিজ্ঞানের একটি মৌল প্রতিপাদ্য বিষয়। ব্যক্তিত্ব একটি ব্যাপক ও জটিল বিষয় বলে এর নিখুঁত ও সর্বজনগ্রাহ্য সংজ্ঞা নির্দেশ করা অত্যন্ত কঠিন। সাধারণভাবে ব্যক্তিত্ব বলতে ব্যক্তির সকল বৈশিষ্ট্যের সামগ্রিক রূপকে বুঝায় যার মাধ্যমে তার আচরণ ও মানসিক প্রক্রিয়ার অনুপম ধারা প্রকাশিত হয়ে থাকে। বস্তুত দৈহিক গঠন, শক্তি, সামর্থ্য, বিশ্বাস, মূল্যবোধ, মনোভাব, আবেগ, প্রকাশভঙ্গি ইত্যাদির সমন্বয়ে ব্যক্তিত্বের সৃষ্টি হয়।

ধর্মনিরপেক্ষতা কি | ধর্মনিরপেক্ষতা কাকে বলে

ব্যক্তিত্বের ইংরেজি শব্দ Personality শব্দটি ল্যাটিন শব্দ পার্সোনা (Persona) থেকে উদ্ভূত হয়েছে। Persona শব্দের অর্থ ‘মুখোশ’। প্রাচীন রোমে অভিনেতারা যে মুখোশ পরে রঙ্গমঞ্চে অভিনয় করতেন সে মুখোশকে Persona বলা হতো। Persona-র এই অর্থ ব্যক্তির বাহ্যিক রূপ বুঝায়। কিন্তু বর্তমানে এ ধারণা গ্রহণযোগ্য নয়। আধুনিক মনোবিজ্ঞানীরা ব্যক্তিত্ব বলতে ব্যক্তির সমস্ত গুণাবলি বা বৈশিষ্ট্যের সমন্বিত রূপকে বুঝিয়ে থাকেন।

ব্যক্তিত্বের সংজ্ঞা

মনোবিজ্ঞানী উডওয়ার্থ (Woodworth) তাঁর ‘Psychology’ গ্রন্থে বলেছেন, “Personality can be broadly defined as the total quality of an individual’s behaviour.” অর্থাৎ, ব্যক্তিত্ব হলো ব্যক্তির আচরণের সামগ্রিক প্রকৃতি।

মনোবিজ্ঞানী বরিং (Boring) তাঁর ‘Foundation of Psychology’ গ্রন্থে বলেছেন, “Personality is defined as an individual’s typical or consistent adjustment to his environment.” অর্থাৎ, ব্যক্তিত্ব হলো ব্যক্তির পরিবেশের সাথে এক বিশেষ ধরনের সংগতিপূর্ণ উপযোজন।

মনোবিদ এইচ. জি. গ্যারেট (H. G. Garrett) তাঁর ‘Great Experiments in Psychology’ গ্রন্থে বলেছেন, “Personality, then is the style or form of behaviour.” অর্থাৎ, ব্যক্তিত্ব হলো আচরণের বিশেষ রীতি বা পদ্ধতি।

মনোবিজ্ঞানী মান (Munn) এর মতে, “Personality may be defined as the most characteristic integration of an individual’s structure, modes of behaviour, interests, attitudes, abilities and aptitudes especially from the stand point of adjustment in social situations.” অর্থাৎ, বিশেষকরে সামাজিক অবস্থার সাথে সামঞ্জস্য বিধানের জন্য ব্যক্তির গঠন, আচরণের ধরন, আগ্রহ, ভাবভঙ্গি, ক্ষমতা, সামর্থ্য এবং প্রবণতার বিশেষ সংহতি বা ঐক্য হলো ব্যক্তিত্ব।

ইবনে খালদুনের আসাবিয়া তত্ত্ব আলোচনা

উপর্যুক্ত সংজ্ঞাগুলো থেকে ব্যক্তিত্বের সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করতে পারি না। তাই জি. ডব্লিউ, আলপোর্ট (G. W. Allport) ব্যক্তিত্বের প্রচলিত সংজ্ঞাগুলোকে বিশ্লেষণ করে একটি Broad based সংজ্ঞা উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, “Personality is the dynamic organization within the individual of those psycho-physical system that determine his unique adjustments to his environment.” অর্থাৎ, ব্যক্তিত্ব হলো ব্যক্তির মনোদৈহিক প্রক্রিয়াসমূহের এক গতিময় সংগঠন যা পরিবেশের সাথে তার অনুপম অভিযোজন নির্ধারণ করে।

Allport এর উপর্যুক্ত সংজ্ঞায় ব্যক্তিত্বের নিম্নোক্ত বৈশিষ্ট্যাবলি বিদ্যমান থাকায় এটি প্রায় সকলের কাছে অধিকতর গ্রহণযোগ্য-বলে মনে হয়।

১. ব্যক্তিত্ব হলো চির গতিশীল।

২. ব্যক্তিত্ব হলো জৈবিক-মানসিক সত্তা।

৩. ব্যক্তি সত্তা বলতে ব্যক্তির কোন কাজ বা আচরণকে বুঝায়।

উপর্যুক্ত সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্যের আলোকে আমরা বলতে পারি যে, ব্যক্তিত্ব হলো ব্যক্তির সকল বৈশিষ্ট্যের সুসামঞ্জস্য ধারা যা তার আচরণে সুস্পষ্টভাবে প্রকাশ পায়। ব্যক্তিত্বের মাধ্যমেই ব্যক্তির স্বতন্ত্রভাব ব্যক্ত হয়। 

Related Posts

2 comments

Comments are closed.