Home শিক্ষানৃবিজ্ঞান রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী গুলো কি কি? – বিস্তারিত আলোচনা

রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী গুলো কি কি? – বিস্তারিত আলোচনা

by Rezaul Karim
রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী, রাজনৈতিক দলের ভূমিকা,

রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী

আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী ব্যাপক। জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন হিসেবে রাজনৈতিক দলগুলোকে নানামুখী জনকল্যাণ মূলক কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত থাকতে হয় সবসময়। নিম্নে রাজনৈতিক দলের কার্যাবলী সমূহ তুলে ধরা হলো-

১. সমস্যা নির্ণয় ও সমাধান

আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের আর্থসামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সমস্যা অত্যন্ত জটিল এবং বৈচিত্র্যময়। প্রতিটি রাজনৈতিক দলই রাষ্ট্রের এ সমস্ত জটিল সমস্যাগুলোর জন্য নীতি ও কর্মসূচি গ্রহণ করে এবং তাদের সমাধান করে।

আরও দেখুন:   রাজনৈতিক দল কাকে বলে | রাজনৈতিক দলের সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য

২. জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী হিসেবে

গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় রাজনৈতিক দল জনগণের প্রতিনিধিত্বকারী হিসেবে ভূমিকা পালন করে। কেননা জনগণই সরকার নিয়ন্ত্রণে চূড়ান্ত ক্ষমতার অধিকারী এবং তারাই পরোক্ষভাবে রাজনৈতিক দলের মাধ্যমে শাসনব্যবস্থায় অংশ নেয়।

৩. সরকারকে দায়িত্বশীল করে

রাজনৈতিক দলবিহীন রাষ্ট্রে সরকার দায়িত্বহীন হয়ে পড়ে। তাই সরকারকে দায়িত্বশীল করতে রাজনৈতিক দল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৪. দলীয় নীতি প্রচার ও জনমত গঠন

প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ এবং কর্মীগণ সভাসমিতি, পত্রপত্রিকা, পুস্তিকা সংকলন ও বিতরণ ইত্যাদির মাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচার কার্য চালায়। এর ভিত্তিতেই দলীয় নীতি ও কর্মসূচির সমর্থনে জনমত গঠনের চেষ্টা করে।

৫. প্রার্থী মনোনয়ন ও নির্বাচনী প্রচার

প্রত্যেক রাজনৈতিক দল নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতায় আসীন হওয়ার জন্য দক্ষ ও যোগ্য প্রার্থী মনোনয়ন প্রদান করে। তাদেরকে বিজয়ী করার জন্য রাজনৈতিক দল সর্বাত্মকভাবে নির্বাচনী প্রচারণা চালায়।

৬. প্রতিশ্রুতি পালন

রাজনৈতিক দলগুলো ক্ষমতায় যাওয়ার পূর্বে জনগণকে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দেয় এবং ক্ষমতাসীন হওয়ার পর তাদের দেয়া প্রতিশ্রুতি পালনে তারা সচেষ্ট হয়।

৭. সরকারের চালিকাশক্তি

গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থায় রাজনৈতিক দল সরকারের চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করে। রাজনৈতিক দল দেশের সরকারি কর্মকাণ্ডে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শাসনকার্য পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৮. সরকার গঠন

জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস এ মূলমন্ত্রে দীক্ষিত হয়ে রাজনৈতিক দলগুলো জনগণের দ্বারস্থ হয় এবং তাদের অধিকাংশের মতামতের ভিত্তিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। সংখ্যাগরিষ্ঠ অর্জনকারী দল সরকার গঠন করে এবং দলীয় নীতি ও আদর্শ অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করে।

৯. দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষা

দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দল ভূমিকা পালন করে থাকে। এ উদ্দেশ্যে রাজনৈতিক দল তার দলীয় কর্মীদেরকে দলীয় নীতিতে উদ্বুদ্ধ করে, দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশে সচেষ্ট রাখে।

আরও দেখুন:   আমলাতন্ত্রের বৈশিষ্ট্য গুলো কি কি? – বিস্তারিত তুলে ধর।

১০. গঠনমূলক সমালোচনা

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে যারা বিরোধী শিবিরে অবস্থান করে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় তারা হলো Shadow government। তারা সরকারের নীতি ও কার্যাবলির দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখে এবং গঠনমূলক সমালোচনা করে উন্নয়নের গতিকে ত্বরান্বিত করে।

১১. ঐক্যবোধ সৃষ্টি

গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জনসাধারণের মধ্যে ঐক্যবোধ সৃষ্টিতে রাজনৈতিক দল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। কেননা রাজনৈতিক দলগুলো তাদের মধ্যকার স্বার্থপরতা ও সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে উঠে জাতীয় স্বার্থকে বড় বলে মনে করে।

১২. সরকারের স্থায়িত্ব

সংসদীয় সরকার ব্যবস্থায় সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজনৈতিক দল সরকার গঠন করে। সুতরাং সরকারের স্থায়িত্বের ব্যাপারে রাজনৈতিক দলের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। কেননা সরকারের পিছনে সবসময় অধিকাংশ পার্লামেন্ট সদস্যের সমর্থন দরকার হয়।

১৩. বিভিন্ন অঙ্গের সহযোগিতা বৃদ্ধি

ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক সরকারের বিভিন্ন বিভাগ যেমন- শাসনবিভাগ ও আইন বিভাগের মধ্যে সহযোগিতার বন্ধন সুদৃঢ়করণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কেননা বিভাগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ব্যতিরেকে সুশাসন সম্ভব নয়।

১৪. রাজনৈতিক জ্ঞান দান

জনৈতিক দলগুলো জনগণের মধ্যে রাজনৈতিক জ্ঞান দান ও চেতনার বিস্তার ঘটায়। দলগুলো বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা চিহ্নিত করে তার সমাধানের ব্যাপারে পর্যালোচনা করে।

১৫. গণতন্ত্রের স্বরূপ বজায় রাখা

বহুদলীয় ব্যবস্থা গণতন্ত্রের জন্য অপরিহার্য। কেননা রাজনৈতিক দলগুলো গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় সঠিক রূপ বজায় রাখে। বস্তুত বহুদলীয় ব্যবস্থা ছাড়া প্রতিনিধিত্বমূলক শাসনব্যবস্থা সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হওয়া সম্ভব নয়।

১৬. দারিদ্র্য বিমোচন

দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য রাজনৈতিক দলগুলো বিভিন্ন সরকারি নীতির উপর প্রভাব বিস্তার করে। শহর ও গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও নীতিমালা। আর রাজনৈতিক দলগুলোই এই জনগোষ্ঠীর পক্ষ অবলম্বন করে তা বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

১৭. গ্রাম ও শহরের ব্যবধান দূরীকরণ

কোন দেশে আধুনিকীকরণের ফলে গ্রাম ও শহর এলাকার মধ্যে ব্যবধান সূচিত হয়। এতে করে গ্রাম ও শহরের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের বৈষম্য বিরাজ করে। এ অবস্থায় রাজনৈতিক দলসমূহ উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারে। রাজনৈতিক দল দেশের সকল অঞ্চল থেকে সদস্য সংগ্রহ করে দলীয় আদর্শের পিছনে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে গ্রামীণ ও শহরের জনগণের মধ্যকার পার্থক্য দূর করে আধুনিকীকরণ প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে।

১৮. অর্থনৈতিক নীতি গ্রহণ

অর্থনৈতিক উন্নয়ন সামাজিক উন্নয়নের পূর্বশর্ত। রাজনৈতিক উন্নয়নের জন্য যেমন অর্থনৈতিক উন্নয়ন অপরিহার্য তেমনি অর্থনৈতিক উন্নয়ন রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের উপর নির্ভরশীল। রাজনৈতিক অর্থনীতি যেমন পরিকল্পনা, বাজেট ইত্যাদি হচ্ছে সরকারের জনগণের কাছে দেয়া উন্নয়ন কর্মসূচিরই প্রতিফলন। আর তা বাস্তবায়নের জন্য বিরোধী দল কিংবা রাজনৈতিক দলগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

পরিশেষে বলা যায় যে, রাজনৈতিক দল রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাকে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সামাজিক দিক থেকে আধুনিকতাগামী করতে সক্ষম হয়। রাজনৈতিক দলবিহীন রাষ্ট্র নিতান্তই ভঙ্গুর। তাই Maurice Duverger এর ভাষায় বলতে হয়, “A regime without parties is of necessity a conservative regime.” অর্থাৎ, আধুনিক গণতন্ত্রের মূলভিত্তি হচ্ছে দলীয় ব্যবস্থা এবং রাজনৈতিক দল হলো তার প্রাণ। বস্তুত তৃতীয় বিশ্বের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দল ব্যতীত রাজনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন এবং পরিবর্তন কল্পনা করা যায় না।

Related Posts